অপরাধ ও দুর্নীতি ২৮ নভেম্বর, ২০২০ ১১:৫৮

তক্ষক বিক্রির লোভ দেখিয়ে জিম্মির পর মুক্তিপণ আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদন

তক্ষক নামমাত্র মূল্যে বিক্রির লোভ দেখিয়ে জিম্মির মাধ্যমে মুক্তিপণ আদায় করতে চট্টগ্রামের পাহাড়ি অঞ্চলগুলোতে গড়ে উঠেছে ৮টি অপহরকারী চক্র অনেকে এই দলের কবলে পড়ে সর্বস্ব হারাচ্ছেন বাণিজ্যিক মূল্য না থাকা সত্ত্বেও শুধু গুজব রটিয়ে বিলুপ্ত প্রায় প্রাণীটি থেকে ২০ লাখ টাকায় বিক্রি করছে তারা

প্রলোভন দেখিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে নিয়ে আসা হয় চট্টগ্রামের ভুজপুর-খাগড়াছড়ির রামগড়ের পাহাড়ি অঞ্চলে এরপর জিম্মি করে আদায় করছে লাখ লাখ টাকার মুক্তিপণ ধরনের অন্তত ৪০ জনের বিস্তারিত বিবরণ পেয়েছে পিবিআই

চট্টগ্রাম পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান বলেন, যা কিনতে আসছেন তারাও কোনো সহায়তা নিচ্ছেন না, কারণ এটা অবৈধ দু'পক্ষই এখানে উইন উইন সিচুয়েশনে ব্যবসাটা করে যাচ্ছে

এদিকে থেকে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে ঢাকায় তক্ষক বিক্রি করছে বান্দরবানভিত্তিক আরেকটি গ্রুপ টাকা পাওয়ার পর ক্যারিয়ার দিয়ে তারা তক্ষক ঢাকায় পৌঁছে দিচ্ছে শাহ আমানত সেতু এলাকা থেকে দুটি তক্ষকসহ দুজনকে আটকের পর পাওয়া গেছে তক্ষক বেচাকেনার চাঞ্চল্যকর তথ্য

সিএমপির সহকারী কমিশনার (কর্ণফুলী) ইয়াসির আরাফাত বলেন, এটা বান্দরবান থেকে ঢাকাতে যায় এর মাঝামাঝি একটা পার্টি এটা পাচার করে দেওয়ার দায়িত্বে ছিলেন

পটিয়া রেঞ্জের বন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, থেকে লক্ষাধিক টাকায় তারা এগুলো বিক্রি করে পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি-ভুজপুর-হেঁয়াকো এবং খাগড়াছড়ির রামগড়ের দুর্গম নূরপুর পাহাড় এবং লালটিলা এলাকায় রয়েছে ৪টি অপহরণকারী দলের শক্ত অবস্থান

চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন বলেন, এর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের সবাইকে আমরা গ্রেফতার করব এরা সাধারণ মানুষকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলছেন