লাইফ স্টাইল ১ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৭:২৬

মাস্ক ব্যবহারে যে বিষয়গুলো অবশ্যই জানতে হবে

ডেস্ক রিপোর্ট

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে পুরো পৃথিবী এখন সংকটের মুখে। এখন পর্যন্ত এর কোনো স্বীকৃত ভ্যাকসিন বা প্রতিষেধক আবিষ্কৃত না হওয়ায় প্রথম থেকে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়ে আসছেন গবেষকরা। আর এই স্বাস্থ্যবিধির মধ্যে মাস্ক ব্যবহার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। চলুন তাহলে জেনে নেই  মাস্ক ব্যবহার এবং সংরক্ষণের কিছু নিয়মাবলী:

কীভাবে পরিধান করবেন?

খুব অল্প সংখ্যক মানুষ জানেন মাস্ক ব্যবহারের সঠিক নিয়মকানুন। মাস্ক পরিধানের পূর্বে অবশ্যই দুই হাত জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। হাত পরিষ্কার করে মাস্কটি এমনভাবে পরতে হবে যাতে নাক ও মুখ পুরোপুরি ঢেকে দেয়া যায়।

কোনো কারণেই মাস্ক এবং ত্বকের মাঝে কোনো ফাঁক রাখা যাবে না। তবে কোনো কোনো ক্ষেত্রে মাস্ক আপনার মুখে পুরোপুরি ফিট না-ও হতে পারে। সেক্ষেত্রে সুবিধাজনকভাবে কিছুক্ষণ পর পর ঠিক করে নিতে হবে। কিন্তু সেক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে মাস্কের উপরের অংশ ব্যবহারকারীর নাকের উপর থাকে। অর্থাৎ এটি নাক এবং মুখকে সার্বক্ষণিক ঢেকে রাখবে। আর যদি মাস্ক ত্বকের সাথে পুরোপুরি ফিট হয়েও নাক অথবা মুখ ঢাকা না যায় তবে এটি ব্যবহারে কোনো উপকার পাওয়া যাবে না।  

মাস্ক ফেলতে গিয়ে বাড়তি সতর্কতা

গবেষকদের মতে, সকল মাস্ক পুনরায় ব্যবহার করা যায় না। কয়েক প্রকার মাস্ক রয়েছে যেগুলো একবার ব্যবহারের পর সরাসরি ডাস্টবিনে ফেলে দিতে হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ডিসপোজেবল মাস্কগুলো একবার ব্যবহারের পর স্যাঁতস্যাঁতে কিংবা একেবারে নরম হয়ে পড়লে সেগুলোকে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিতে হবে।

নিজেই নিজের জন্য মাস্ক তৈরি করার পদ্ধতি

নিজে মাস্ক তৈরি করতে হলে পুরোনো জামাকাপড় প্রথমে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। তারপর ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী বিভিন্ন ডিজাইনে কাপড়গুলো কেটে সেলাই মেশিনের সাহায্যে মাস্ক তৈরি করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, মাস্কে যত বেশি লেয়ার থাকবে এটি তত বেশি কার্যকরী হবে। মাস্ক তৈরিতে সম্ভব হলে গজ কাপড় ব্যবহারের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। অন্যথায়, শক্তভাবে বুনন করা কটন, ন্যাচারাল সিল্ক অথবা উপরিভাগ সুতির এমন কাপড় ব্যবহার করতে হবে।

মাস্ক পরিষ্কারের নিয়মাবলী

আপনি যদি পুনরায় ব্যবহারোপযোগী মাস্ক পরিধান করেন তবে অবশ্যই সেটি নিয়মানুসারে পরিষ্কার করতে হবে। আমরা জানি, স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে গেলে ডিসপোজেবল মাস্ক ফেলে দিতে হয়। তবে এই ধরনের মাস্কগুলো স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে গেলে সরাসরি ওয়াশিং মেশিনে দিতে হবে। যেহেতু পুনরায় ব্যবহারোপযোগী বেশিরভাগ মাস্ক কাপড়ের তৈরি, সেহেতু এগুলো পরিষ্কার করতে তেমন সমস্যা হয় না।

হাল্কা গরম সাবান পানিতে ২০ সেকেন্ড মাস্ক ডুবিয়ে রাখতে পারেন। তারপর সেগুলোকে হাতেই পরিষ্কার করা যাবে। যারা সুগন্ধি সংবেদনশীল, তাদেরকে সুগন্ধহীন ডিটারজেন্ট কিংবা সাবান ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে গবেষকরা।