মুক্তমত ৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:০২

প্রতিকূলতা জয় করে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ

দেলোয়ার হোসেন ফারুক

দুয়ারে উপস্থিত নতুন বছর-২০২১ মহাকালের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকার মতো বিভিন্ন উপাদান সাথে নিয়ে বিদায় হচ্ছে-২০২০ সাল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব, মহামারি আকারে তা ছড়িয়ে পড়া, মহামারির বিরুদ্ধে মানুষের অক্লান্ত যুদ্ধ, মৃত্যুর মিছিল, ভ্যাকসিনের প্রত্যাশা ইত্যাদি ছিল-২০২০ সালের আলোচিত বিষয় আর বিশ্বজুড়ে বহুল ব্যবহৃত শব্দের তালিকায় ছিল, কোয়ারেন্টাইন, অনলাইন ক্লাস, নিউ-নরমাল, সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং এবং সর্বোপরি কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস

এমন একটি বছরেও আমাদের রয়েছে উল্লেখযোগ্য কিছু অর্জন এর সঙ্গে মোকাবেলা করতে হয়েছে অনাকাঙ্ক্ষিত ষড়যন্ত্রও বেশ কিছু ঘটনা আলোচিত-সমালোচিত হয়েছে বছরের বিভিন্ন সময় আমাদের অর্জন, হতাশা, বেদনা, প্রতিরোধ ও প্রত্যাশা পূরণের সেই ঘটনাগুলো আরেকবার দেখে নেই যাপিত সময়কে ফিরে দেখতে সত্যি ভালো লাগে, যদি ওই দেখার মাঝে আনন্দ উপকরণ জড়িয়ে থাকে কিন্তু ২০২০ সালের দিকে ফিরে তাকালে আনন্দের চেয়ে হতাশাই বেশি চোখে পড়বে ২০২০ সাল পৃথিবীর সব বাংলা ভাষাভাষির মনেই হয়তো বিষময়-বিশ হিসেবেই স্মরণীয় হয়ে থাকবে তবুও আমরা ফিরে দেখতে চাই, ফিরে দেখতে ভালোবাসি ফিরে-ফিরে দেখতে পাই মৃত্যুর স্তূপ জন্স হপকিন্সের ৩১ ডিসেম্বর-২০২০ পর্যন্ত সংকলিত তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীব্যাপী করোনা ভাইরাসে সংক্রমিতের সংখ্যা ৮ কোটি ২৭ লাখ এর মধ্যে মৃতের সংখ্যা ১৮ লাখ প্রতিদিনই প্রিয়জন আর বহুগুণী মানুষের বিদায়ে বিষণ্নতাই যেন আমাদের চলার পথের সঙ্গী হয়ে উঠছে

এই প্রাণঘাতী মহামারি কেড়ে নিয়েছে প্রিয় জন্মভূমির কিংবদন্তিতূল্য অনেক শ্রেষ্ঠ সন্তানদের তাঁদের মাঝে প্রায় দুই শতাধিক মেধাবী চিকিৎসক, প্রায় অর্ধশত সাংবাদিক এবং শতাধিক আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য রয়েছেন যারা কর্মক্ষেত্রে দায়িত্বপালনের সময় করোনো আক্রান্ত হয়ে মারা যান এই বছরই জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান ও অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী এবং ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠা স্যার ফজলে হাসান আবেদের মতো মানুষদের অনাকাঙ্খিতভাবে চলে যাওয়ায় প্রজ্ঞাময় অভিভাবক হারিয়েছে বাংলাদেশ তাঁদের চলে যাওয়া সত্য আর সুন্দরের লড়াইকে যেমন নেতৃত্ব সংকটে ফেলেছে, তেমনি শিল্প-বাণিজ্য খাতের অগ্রযাত্রাকে বিপর্যস্ত করেছে পার্টেক্স, যমুনা বা ট্রান্সকম গ্রুপের মালিকের চলে যাওয়ায় চতুর্থ শিল্পবিপ্লবকে সামনে রেখে যখন আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম পরিবর্তনের, ঠিক তখনই নিজ নিজ ক্ষেত্রে উজ্জ্বল এসব নক্ষত্রদের হারিয়ে আমরা অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি বিষময় এই বছরটিতেই এই বছরের শুরুতে বিশ্বব্যাপী বিশাল খবর যেমন ছিল করোনাভাইরাসের মহামারি-রূপ ধারণ করা, তেমনি বছরের শেষে সেই ভাইরাসের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন আবিষ্কারই হয়তবা তার চেয়ে বড় খবর শুধু দেখার বিষয় হচ্ছে এই ভ্যাকসিন কত দ্রুত সবার মাঝে পৌঁছানো যাবে ভ্যাকসিনেশনের সময়টা যত বাড়বে মানুষের দুর্ভোগও ততো বাড়বে

দূরে থাকার, বিচ্ছিন্নতার, আতঙ্কের, মহামারির আর দুর্ভোগের বছর যেমন ছিল এই ২০২০, তেমনি এই বছরে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির আস্ফালনও ছিল চোখে পড়ার মতো জাতির জনকের ভাস্কর্য ভেঙে একাত্তরে পরাজিত শক্তি দেশের মানুষকেই যে শুধু বিভক্ত করেছে তা নয়, বরং তারা সংবিধান আর সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য চ্যালেঞ্জ ছুড়েছে বঙ্গবন্ধুর জন্ম-শতবর্ষের শুভলগ্নে মুজিবের ভাস্কর্য নির্মাণের পরিকল্পনা আসলে পাকিস্তানপ্রেমী অপশক্তির হেরে-যাওয়ার গ্লানিকেই বাড়িয়ে দেয় আর হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে ভাস্কর্য ভাঙ্গার মত অঘটন ঘটায় ধর্মভীরু সংখ্যা গরিষ্ঠ মুসলমানের দেশে শান্তির ধর্ম ইসলামকে অপব্যবহার করে অপশক্তির ফায়দা হাসিলের প্রচেষ্টায় মূর্তি আর ভাষ্কর্য নিয়ে বিবাদে জড়িয়ে দেয় গোটা দেশের মানুষকে কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব আর দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সিদ্ধান্তের ফলে এই অপশক্তির আস্ফালন নিবৃত হয়, একাত্ম হয় দেশের মানুষ, এই ২০২০ সালেই

করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব যখন একেবারেই থমকে গেছে, তখন আমাদের প্রধানমন্ত্রীর অবদানে, বাংলাদেশের অর্থনীতির গতিধারা সীমিত আকারে হলেও অগ্রসর হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ''যদিও কাঙ্খিত ৮ দশমিক ২ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হয়নি, তথাপি সবার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অর্থনীতির চাকাটা সচল রাখা সম্ভব হয়েছে" এই বছরে যখন সারা বিশ্বের নেতারা কেবল টিকে থাকতে পেরে সন্তুষ্ট, পৃথিবীতে থাকা সকল সম্ভাবনাই যখন শেষ হয়ে যাওয়ার কথা, ঠিক তখনই এই ২০২০ সালেই জননেত্রী অর্জন করে দেখিয়েছেন ধারাবাহিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি

বিদায়ী বছর ২০২০- এ আমরা হারিয়েছি অনেক কিছু অনেকে হারিয়েছেন স্বজন-প্রিয়জন আবার কারো কারো প্রাপ্তিযোগও হয়েছে কোনো না কোনোভাবে অনেক হারানোর মাঝে প্রাপ্তির কথা বলতে গেলে দেখতে পাই জাতির পিতার নাতি সজীব ওয়াজেদ জয়ের 'ডিজিটাল বাংলাদেশ' রূপকল্পের সুফল ২০০৯ সালেই ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে বাংলাদেশ হাঁটতে শুরু করেছিল বলেই এই ২০২০ সালের অবরুদ্ধ সময়ে থমকে যায়নি বাংলাদেশ তথা বাংলাদেশের শিক্ষা ও বাণিজ্য ২০২০ সাল না আসলে হয়তো আমাদের জানাই হতো না, ডিজিটাল জীবনব্যবস্থার সম্ভাবনা সম্পর্কে হোম অফিস, অনলাইন ক্লাস বা ও্যবাইনারের জন্য আমাদের যে ডিজিটাল অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রকল্পের আওতায় তার সুফল জাতি পেয়েছে এই ক্রান্তিলগ্নে মহামারির এই সময়ে মানুষ আজ প্রযুক্তিকে আপন করতে পেরেছে জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে শিক্ষা, চিকিৎসা, বিনোদন অথবা দৈনন্দিন কেনাকাটা; সব ক্ষেত্রেই দেশের মানুষ প্রযুক্তির ব্যবহার করেছে ব্যাপকভাবে এই ২০২০ সালেই আমরা দেখেছি মানবতার জয়গান এই ক্রান্তিলগ্নে কেউ হয়তো গোপনে দান করেছেন, কেউ সাহায্য করেছেন প্রকাশ্যে দলগতভাবে নানা ধরনের উদ্যোগ নিতে দেখেছি দেশের তরুণদের বিভিন্ন সংগঠন থেকে খাবার, ওষুধ, অর্থ, পোশাকসহ নানা ধরনের সাহায্য করতে দেখেছি অসহায় মানুষকে শুধু মানুষের কল্যাণেই নয়, লকডাউনে দেখেছি অসহায় পথের প্রাণীদের জন্যও খাবার নিয়ে ছুটে বেড়ানো তরুণদের

নিজেকে দেখেছি করোনায় আক্রান্ত হয়ে জীবন-মৃত্যুর মাঝে অনিশ্চিতভাবে বন্দি হয়ে থাকতে বিগত ২০২০ সালে দেখেছি অনেক কিছুই নতুন করে এমনকি স্বাভাবিকতাও হয়েছে নতুন-স্বাভাবিক নানা ধরনের দুর্যোগ-দুর্বিপাক, মড়ক-মহামারির অভিজ্ঞতা বিশ্ববাসীর আছে প্রাণঘাতী অসুখও আগে একাধিকবার হয়েছে মহামারিতে মৃত্যুর ঘটনাও নতুন নয় তবে সে সব মহামারির তুলনায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা কম হলেও পৃথিবীজুড়ে মানুষের মধ্যে এ নিয়ে যে ভয় ও অসহায় অবস্থা তৈরি হয়েছে তা তুলনাহীন জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে অর্থনীতি সচল হয়ে উঠুক পৃথিবীব্যাপী কলকারখানা-কৃষি উৎপাদন চালু হোক ব্যাপকহারে বেকারত্ব দূর হোক শিক্ষার অচলাবস্থা কেটে যাক সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড পুনরুজ্জীবিত হোক সকল প্রতিবন্ধকতা সফলভাবে মোকাবিলা করে দ্রুত ভ্যাকসিনেশন শুরু এবং শেষ হোক মানুষ বাঁচুক মানুষের হতাশা কাটুক

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত বাসনা সুখী, সমৃদ্ধ, অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলার পথে তাঁরই কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরও দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাক সকল প্রতিকূলতাকে জয় করে প্রিয় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক প্রত্যাশা-এটুকুই; স্বাগত ২০২১, শুভ নববর্ষ!!!

দেলোয়ার হোসেন ফারুক, সম্পাদক ও প্রকাশক দৈনিক আমাদের কাগজ