অপরাধ ও দুর্নীতি ১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:৫৯

মন্ত্রী ও পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতেন যিনি

নিজস্ব প্রতিবেদক

মন্ত্রী, এমপি, এসপি এবং কাউন্সিলরদের কণ্ঠ নকল করে চাঁদা তুলে দীর্ঘদিন ধরেই প্রতারণা করে আসছিলেন তিনি। অবশেষে রবিবার সন্ধ্যায় একটি বিকাশের দোকান থেকে প্রতারণার ৩৭ হাজার টাকা তোলার সময় তাকে হাতেনাতে আটক করে মিরপুর মডেল থানা পুলিশ।

আটক ব্যক্তির নাম সোহেল মাহমুদ। তার বাড়ি সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার পিপুলবাড়ি গ্রামে।

নামী-দামি ব্যক্তির পরিচয় দিয়ে গরিবদের কম্বল, করোনার টিকা কিনে দেয়াসহ নানা মিথ্যা কথা বলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করতেন তিনি। রাজধানীর পীরেরবাগে বিয়ে করে শ্বশুর বাড়িকেই ঠিকানা বানিয়েছেন সোহেল মাহমুদ।

মিরপুরের উপ-পুলিশ কমিশনার পরিচয় দিয়ে ১৪ জানুয়ারি এক ফার্নিচার ব্যবসায়ীর কাছে টাকা দাবি করলে সন্দেহ হয় ব্যবসায়ীর। পরে তিনি ঘটনাটি পুলিশকে জানান।

ভুক্তভোগী মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘ফোন পাওয়ার পরই তার ভয়েস নিয়ে আমার সন্দেহ হয়। তারপর আমি পুলিশকে বিষয়টি জানাই।’

মিরপুরের উপ-পুলিশ কমিশনার এ এস এম মাহতাব উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি শোনার পর আমরা একটা টিম গঠন করি। তারপর তাকে পাঠানো টাকা সে পেয়েছে কিনা জানতে চাইলে সে বিকাশের দোকানে গেলে সেখান থেকেই তাকে আটক করা হয়।’

প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর দারুসালাম এবং রামপুরা থানায় তার নামে তিনটি মামলাও রয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ছবি -  সংগৃহীত