বিনোদন ২০ জানুয়ারি, ২০২১ ০৩:১৩

ভিউর রেকর্ড গড়লো অপূর্ব-সাবিলা

বিনোদন ডেস্ক

জিয়াউল ফারুক অপূর্বকে এখন চিহ্নিত করা যায় টিভি ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে সফল ও প্রভাবশালী অভিনেতা হিসেবে। সেটি যদিও পজিটিভ অর্থেই। তার অর্জন ও জনপ্রিয়তার ধারাবাহিকতা সেটাই প্রমাণ করে। তার সাথে জুটি বাঁধা অভিনেত্রী ও নাটক দুটিই বেশ দর্শকপ্রিয়তা কুড়ায় জনসাধারণের মাঝে।

এ অভিনেতা মনে করেন, তিনি কিছুই নন তার যা কিছু অর্জন, সবটুকুই দর্শকদের উপহার মাত্র। এ অভিনেতা গণমাধ্যমকে বলেন, আমি শুধু দর্শকদের মন রক্ষার করে সময়ের সঙ্গে তাল মেলানোর চেষ্টা কারি। টিভি, স্যাটেলাইট টিভি, ইউটিউব, অ্যাপ জানি না সামনে আরও কতো মাধ্যম আছে। প্রতিটি মাধ্যমেই আমি চেষ্টা করি দর্শকদের সঙ্গে থাকতে। কারণ, দর্শক ও সময় এই দুটোর বাইরে আমরা কেউ কিছু নই।

সম্প্রতি অপূর্বর অভিনীত ‘এক্সচেঞ্জ’ নাটকটি বেশ প্রশংসা কুড়ায়। সেখানে তার সহশিল্পী ছিলেন সাবিলা নূর। গত ২৩ নভেম্বর রুবেল হোসেন পরিচালিত নাটকটি ইউটিউবে মুক্তি পায়। এরপর মাত্র ৫৩ দিনের মাথায় এটি অতিক্রম করে কোটি ভিউয়ের ক্লাব! যা বাংলাদেশের নাটকের ইতিহাসে দ্রুততম ভিউ বিচারে দ্বিতীয় স্থান।

ক’মাস আগেই এই অবস্থানে ছিলো সিএমভি প্রযোজিত ও অপূর্ব-মেহজাবীন চৌধুরী অভিনীত একই নির্মাতার আরেক নাটক ‘মিস্টার এন্ড মিসেস চাপাবাজ’ এটি ইউটিউবে প্রকাশের ৭৩ দিনের মাথায় এক কোটি ভিউ অতিক্রম করে।

মাত্র ৫৩ দিনে ‘এক্সচেঞ্জ’ অতিক্রম করে ‘মিস্টার এন্ড মিস চাপাবাজ’ নাটকটির রেকর্ড। ফলে তৃতীয় অবস্থানে নেমে আসে ‘চাপাবাজ’ নাটকটি। অন্যদিকে প্রথম অবস্থানে রয়েছে অপূর্ব-মেহজাবীন অভিনীত আরিয়ানের ‘বড় ছেলে’ নাটকটি। এটি ৩৩ দিনে অতিক্রম করে কোটি ভিউ-এর ঘর।

এখন দ্রুততম কোটি ভিউয়ের প্রথম ৪টি নাটকই জিয়াউল ফারুক অপূর্বর দখলে! এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা ভালোলাগার বিষয়। অহংকারের নয়। দ্রুততম তালিকায় ৪টি কাজই আমার, মানে দর্শকরা আমাকে প্রচুর ভালোবাসা দিয়েছেন। একজন শিল্পীর কাছে এরচেয়ে বড় স্বীকৃতি আর কিছু হতে পারে না। আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি নতুন রেকর্ডটির সঙ্গে সংযুক্ত সবার প্রতি।

এদিকে ‘এক্সচেঞ্জ’ নাটকে অপূর্বর সহশিল্পী সাবিলা নূর বলেন, ‘আমার ক্যারিয়ারে এটাই প্রথম কোটি ভিউ! সে হিসেবে একটু বেশি খুশি খুশি লাগছে। সেই খুশির পালে বাতাস লাগলো তখন, যখন জানলাম এটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে কোটি ভিউ হওয়া ২য় নাটক! কৃতজ্ঞতা জানাই আমার নির্মাতা, সহশিল্পী আর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের প্রতি। এই অর্জন পুরো টিমের।’