রাজনীতি ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:২৯

‘স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের সবশেষ শিকার মুশতাক’

ডেস্ক রিপোর্ট

লেখক মুশতাক আহমেদ কারাবন্দি অবস্থায় মৃত্যুবরণের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন সঙ্গতি-অসঙ্গতি, নিয়ম-অনিয়ম, কীর্তি-অপকীর্তি ইত্যাদি বিষয়ে স্বাধীনচেতা মানুষের অভিমত, বিশ্লেষণ ইত্যাদি প্রকাশের সুযোগ গণতান্ত্রিক বিশ্বে সর্বজনস্বীকৃত।

কিন্তু বাংলাদেশে আওয়ামী সরকার তাদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের সমালোচনা যাতে প্রকাশ না হয় সেজন্য নানা কানুনের মাধ্যমে ফেসবুকে মন্তব্য লেখা বা পোস্ট কোনোভাবেই বরদাস্ত করছে না।  

‘যারা স্বাধীনভাবে নিজের মত প্রকাশের চেষ্টা করছে তাদের জীবনে নেমে আসছে ভয়ঙ্কর দুর্বিষহ পরিণতি। হয় তাদের গুমের শিকার হতে হচ্ছে নতুবা সরকারি হেফাজতে প্রাণ দিতে হচ্ছে। তার সবশেষ নির্মম শিকার হলেন মুশতাক আহমেদ। ’

তিনি বলেন, মূলত মুশতাক আহমেদকে কারাগারে অবর্ণনীয় নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মুশতাক লুটপাটকারী কিংবা কালোবাজারি, সন্ত্রাসী ও ডাকাত ছিলেন না। ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজের মেধাবী ছাত্র মুশতাক আহমেদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চিন্তার স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে গিয়ে অকালে তার জীবনপ্রদীপ নিভিয়ে দেওয়া হলো। মুশতাকের এই নির্ভিক আত্মদানের মধ্য দিয়েই দেশের তরুণ সমাজ জেগে উঠবে এবং দেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও নাগরিক স্বাধীনতাসহ সুশাসন ও আইনের শাসন ফিরে আসবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশে আইন-কানুন, সুষ্ঠু বিচারিক ব্যবস্থা না থাকার কারণেই এক সন্ত্রাসী পরিবেশ বিরাজ করছে। মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। সরকারের বিরুদ্ধে সত্য সমালোচনাতেও তারা আঁতকে ওঠে। রাষ্ট্রের সব অঙ্গকে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে রূপান্তর করা হয়েছে।  

গত বছর মে মাসে মুশতাক আহমেদের সঙ্গে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকে আটক করে এখনও কারাবন্দি করে রাখার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব অবিলম্বে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের মুক্তি দাবি করেন।