বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ২৪ নভেম্বর, ২০২০ ০৩:২২

বাজারে এলো ওয়ালটনের গেমিং ল্যাপটপ

টেক ডেস্ক

হাই কনফিগারেশনের নতুন গেমিং ল্যাপটপ নিয়ে এলো দেশীয় প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। 'কেরোন্ডা জিএক্সসেভেনটেনজি প্রো' এই মডেলে ব্যবহৃত হয়েছে ইন্টেলের দশম প্রজন্মের প্রসেসর, এনভিডিয়া এর ৪ গিগাবাইট জিফোর্স জিটিএক্স ১৬৫০ গ্রাফিক্স কার্ড, ১৬ জিবি র‌্যাম, ৫১২ গিগাবাইট এনভিএমই সলিড স্টেট ড্রাইভ ফিচার।

কেরোন্ডা সিরিজের আকর্ষণীয় ডিজাইনের ওই ল্যাপটপটির দাম রাখা হয়েছে মাত্র এক লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা। নগদ মূল্যের পাশাপাশি এই ল্যাপটপ কিস্তিতে কেনা যাবে। রয়েছে পুরোনো যেকোনো ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ ও ডেস্কটপের সঙ্গে একচেঞ্জ করার সুবিধা। তা ছাড়া ক্রেডিট কার্ডে বিনা ইন্টারেস্টে ইএমআই সুবিধা দিচ্ছে দেশের ৩৭২টি ওয়ালটন প্লাজা।

ওয়ালটন কম্পিউটারের সিইও মো. লিয়াকত আলী বলেন, ‘গেমিং ল্যাপটপ সাধারণত হাই কনফিগারেশনের হয়। এতে অন্যান্য সাধারণ ল্যাপটপের চেয়ে দামটাও বেশি হয়। যার ফলে ইচ্ছে থাকলেও অনেক ক্রেতার জন্য গেমিং ল্যাপটপ কেনা সম্ভব হয় না। এসব বিষয় বিবেচনা করেই সাশ্রয়ী মূল্যে সর্বাধুনিক ফিচারের নতুন মডেলের গেমিং ল্যাপটপটি বাজারে ছাড়া হয়েছে। গেম খেলার পাশাপাশি এই ল্যাপটপ দিয়ে ডিজাইন, সিমুলেশন এবং গ্রাফিক্সের ভারি কাজ করা যাবে। এ ছাড়া পড়াশোনা কিংবা অফিশিয়াল কাজও হবে গতিময়। বাজারে থাকা একই কনফিগারেশনের অন্যান্য ল্যাপটপের চেয়ে কেরোন্ডা জিএক্সসেভেনটেনজি প্রো দামে অনেক সাশ্রয়ী।’

নতুন এই ল্যাপটপে ব্যবহার করা হয়েছে ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চির ফুল এইচডি ম্যাট আইপিএস এলইডি ব্যাকলিট ডিসপ্লে। এর রিফ্রেশ রেট ১৪৪ হার্জ হওয়ায় গেমারদের কাছে এটি বিশেষ আকর্ষণীয়। ল্যাপটপটির পর্দার রেজ্যুলেশন ১৯২০ বাই ১০৮০ পিক্সেল। ফলে এতে স্পষ্ট ও প্রাণবন্ত ছবি দেখার অভিজ্ঞতা মিলবে। গেম খেলা, কাজ করা বা মুভি দেখায় পাওয়া যাবে অসাধারণ অনুভূতি। এর ম্যাট ডিসপ্লে প্যানেল আলোর প্রতিফলন রোধ করবে। যা চোখকে আরাম দেবে। দীর্ঘক্ষণ গেম খেলা বা কাজ করায় চোখের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে না।

এছাড়াও এই ল্যাপটপের উচ্চগতি নিশ্চিতে আছে ইন্টেলের দশম প্রজন্মের ২ দশমিক ৬ গিগাহার্টস ক্লকরেটের কোর আই সেভেন ১০৭৫০এইচ ৬-কোর প্রসেসর। মেমোরি ডিভাইস হিসেবে রয়েছে ১৬ গিগাবাইট ডিডিআর৪ র‌্যাম যা ৬৪ জিবি পর্যন্ত বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। প্রয়োজনীয় গেম, সফটওয়ার, ডকুমেন্ট, মুভি ইত্যাদি সংরক্ষণের জন্য আছে এনভিএমই ফর্ম ফ্যাক্টরের ৫১২ গিগাবাইট সলিড স্টেট ড্রাইভ। প্রয়োজনে হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ সংযোজনের জন্য রয়েছে ২ দশমিক ৫ ইঞ্চির ৭ মিমি সাটা ইন্টারফেস।

শক্তিশালী ও ভারী গেম অনায়াসে চলার জন্য এই ল্যাপটপে গ্রাফিক্স হিসেবে আছে এনভিডিয়া জিফোর্স জিটিএক্স ১৬৫০ মডেলের ৪ গিগাবাইট জিডিডিআর৬ ভিডিও র‌্যাম। পাশাপাশি রয়েছে বিল্টইন ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৬৩০। ফলে গেম খেলার সময় অসাধারণ অভিজ্ঞতা মিলবে। ছবি বা ভিডিও এডিটিং কাজের গ্রাফিক্যাল কালার ও মানও হবে অনেক বেশি উচ্চপর্যায়ের।’

আকর্ষণীয় গেমিং আবহ তৈরিতে এই ল্যাপটপে আছে হাই ডেফিনেশন অডিও। বিল্ট ইন অ্যারে মাইক্রোফোন। দুটি দুই ওয়াটের স্পিকার থাকায় স্পষ্ট ও জোড়ালো শব্দ পাওয়া যাবে। সাউন্ড ব্লাস্টার সিনেমা ৬ থাকায় আলাদা স্পিকার ব্যবহারে শব্দের মান অপরিবর্তিত থাকবে।

দীর্ঘক্ষণ পাওয়ার ব্যাকআপের নিশ্চয়তায় উভয় ল্যাপটপে ব্যবহৃত হয়েছে শক্তিশালী ৪ সেলের স্মার্ট লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি। যা প্রায় ৮ ঘণ্টা ব্যাটারি ব্যাক-আপ দিতে সমর্থ।

ব্যাটারিসহ এর ওজন মাত্র দুই কেজি। ফলে যেকোনো স্থানে সহজেই বহন করা যাবে। এর দৈর্ঘ্য ৩৫৯ দশমিক ৫ মিলিমিটার, ২৩৮ মিলিমিটার চওড়া এবং পুরুত্ব ২১ দশমিক ৯ মিলিমিটার।